শিক্ষক, অর্থনীতিবিদ ও গরেষক আনু মুহাম্মদের ৬২তম জন্মবার্ষিকীতে ফুলেল শুভেচ্ছা

Anu Mahmud 01
বাংলাদেশে মার্কসীয় অর্থনীতি ও রাজনৈতিক অর্থনীতি সংক্রান্ত আলোচনায় পরিচিত লেখক আনু মুহাম্মদ। বাম রাজনৈতিক আন্দোলনের কর্মী। বৈষম্যের বিরুদ্ধে সাম্যের কথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, সম্পদের সুষম বণ্টনের কথা। ধর্মের নামে সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্পের মূলেই আঘাত করেন তিনি। আধুনিকতার মোড়কে সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে উচ্চকণ্ঠ অর্থনীতির এ অধ্যাপক। মার্কসবাদের কঠিন তত্ত্বকথা আর ‘রাজনৈতিক অর্থনীতি’র জটিল ধাঁধাও তার বর্ণনায় সরল হয়ে হাজির হয় শ্রমজীবী, দরিদ্র জনসাধারণের কাছে। তিনি একজন শিক্ষক।বর্তমানে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে শিক্ষকতা করছেন। এছাড়া একই বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগেও শিক্ষকতা করেছেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি বিশ্বব্যাপী শোষণ, বৈষম্য, নিপীড়ন ও আধিপত্য বিরোধী তত্ত্বচর্চ‍া ও লড়াইয়ে সক্রিয় অংশ নেন। বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সম্পদে জনগণের মালিকানা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনসহ যে কোন প্রকার নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকা পালন করেন। বর্তমানে তিনি তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব। এছাড়াও তিনি অনলাইন পত্রিকা মেঘবার্তার সম্পাদক। আজ এই কৃতি ব্যক্তিত্বের ৬২তম জন্মবার্ষিকী। ১৯৫৬ সালের আজকের দিনে তিনি জামালপুরে জন্মগ্রহণ করেন। শুভ জন্মদিন অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ।

আনু মুহাম্মদ। পুরো নাম আনিসুর রহমান। আনু তার ডাক নাম। দেশ-বিদেশে তার পরিচয় আনু মুহাম্মদ হিসেবে। ১৯৫৬সালের ২২ সেপ্টেম্বর জামালপুরে জন্মগ্রহণ করেন। তবে আনু মুহাম্মদের বেড়ে ওঠা ঢাকার মালিবাগ চৌধুরী পাড়ায়। সাত ভাই বোনের মধ্যে তিনি তৃতীয়। ঢাকা কলেজ থেকে আইএসসি পাসের পর তিনি ভর্তি হন জাহাঙ্গীরনগরে ১৯৭৬-৭৭ সালে। ঢাকায় লেখাপড়া শেষ করে ১৯৮২ থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে যোগদান করেন। তার শিক্ষকতার গণ্ডি ক্লাসরুমের বাইরেও বিস্তৃত বহুদূর। পড়িয়েছেন নৃবিজ্ঞানেও। ছিলেন অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি। উইনিবেগ ও মনিটোবায় ভিজিটিং প্রফেসর ছিলেন। কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে ছিলেন ভিজিটিং স্কলার (১৯৯৩)। কমিউনিস্ট জগতের কিউবা ও ভেনিজুয়েলায় সফর করেছেন তিনি। হুগো শ্যাভেজের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়েছিল তার। সাম্রাজ্যবাদের কড়া সমালোচক এই অধ্যাপক মনে করেন, ‘মানুষের খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা বা শিক্ষার চেয়ে সমরাস্ত্র এবং যুদ্ধ সরঞ্জামের পেছনে পৃথিবীর সম্পদ ব্যয় হয় বেশি। প্রতি বছর ৯০০ বিলিয়ন ডলার খরচ হয় এ খাতে। আর এর ৬০ ভাগ অর্থাৎ ৬০০ বিলিয়ন ডলার খরচ করে একা আমেরিকাই। এর বিরুদ্ধে তার সোচ্চার ভূমিকা। ২০০৯ সালে দুইটি বহুজাতিক কোম্পানির সঙ্গে জাতীয় তেল সম্পদ উত্তোলনের বিষয়ে চুক্তির উদ্যোগ নেয় সরকার। ‘জনস্বার্থবিরোধী’ সেই চুক্তির বিরুদ্ধে রাজপথে আন্দোলন করতে গিয়ে পুলিশের লাঠির আঘাতে আহত হন আনু মুহাম্মদ। ২০১১ সালে তাকে আটকও করা হয়েছিল। বাংলাদেশে মার্কসীয় অর্থনীতি ও রাজনৈতিক অর্থনীতি সংক্রান্ত আলোচনায় তিনি সবচেয়ে পরিচিত লেখক। তাঁর উল্লেখযোগ্য প্রবন্ধের বই: বিশ্ব পুঁজিবাদ ও বাংলাদেশের অনুন্নয়ন (১৯৮৩), বাংলাদেশের সমাজ, সময় ও মানুষের লড়াই (১৯৯০), বাংলাদেশের অর্থনীতির চালচিত্র (২০০০), উন্নয়নের রাজনীতি (২০০৬) ইত্যাদি। ব্যক্তিগত জীবনে আনু মুহাম্মদ বিবাহিত। তার স্ত্রী শিল্পী বড়ুয়াও ছিলেন জাহাঙ্গীরনগরের শিক্ষার্থী। বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আনু মুহাম্মদরে ৬২তম জন্মবার্ষিকী আজ। শিক্ষক, অর্থনীতিবিদ ও গরেষক আনু মুহাম্মদের জন্মবার্ষিকীতে ফুলেল শুভেচ্ছা।

নূর মোহাম্মদ নূরু
গণমাধ্যমকর্মী
nuru.etv.news@gmail.com

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.